• শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৪৯ পূর্বাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনাম
বকুল খরাদীকে যোগ্য বলে মনে করেন সাধারণ মানুষরা ১২ নং রামানন্দ খাজুরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের ত্রীবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত নান্দাইলে জমি সংক্রান্ত বিরোধে একজন খুন নান্দাইলে পুকুরে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু ট্রেনের মধ্যেই ফুটফুটে বাচ্চার জন্ম দিলেন মা বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে রাসিক বালক ও বালিকা দলের চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ ট্রফি প্রদান বন্যা দুর্গতদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করলেন রাসিক মেয়র লিটন পদ্মাপাড়ের পরিবেশ রক্ষা ও দর্শনার্থীদের নিরাপত্তায় বসানো হবে পুলিশ ক্যাম্প রাণীশংকৈলে সাংবাদিকের স্ত্রীর রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল রাণীশংকৈলে মাদকদ্রব্য বিশেষ অভিযানে গাঁজা ও ইয়াবাসহ গ্রেফতার ২

ঝিনাইদহে চার মাসের শিশুর পিতৃত্বের পরিচয় নিয়ে সংকটে অসহায় মা

Reporter Name / ২০ Time View
Update : মঙ্গলবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহ

ঝিনাইদহের লম্পট ইমরান বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে পরোকিয়ায় আবদ্ধ করে এক নারীকে। দুজনের মাঝে দীর্ঘদিন চলে আসছে এই সম্পর্ক। ইতোমধ্যে এক সন্তানের জননী হয়ে গেছে ওই নারী। পরোকিয়ার ঘটনাটি জানাজানি হলে ওই মহিলার ঘর থেকে এলাকাবাসী দুজনকে আটকে পুলিশে দিলেও ছেলে পক্ষের তদবিরে তাদের কে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার রাধানগর গ্রামে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হরিণাকুন্ডু উপজেলার রায়পাড়া ভাতুড়িয়া গ্রামের মৃত আলম মন্ডলের ছেলে ইমরান (২৫) নামে এক যুবক পাশাপাশি গ্রামের ঝিনাইদহ সদরের রাধানগর গ্রামের অতি দরিদ্র পরিবারের মর্জেম মন্ডলের মেয়ে আনজিরা (২০) এর সাথে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে পরোকিয়ার সম্পর্ক গড়ে তোলে। তারা দীর্ঘদিন ধরে অবৈধ শারীরিক সম্পর্কও চালিয়ে আসছিল। ৪বছর আগে বিয়ে হয় আনজিরার, তার ঘরে এখন ৪ মাসের একটি পূত্র সন্তান হয়েছে, তার পরেও ঐ লম্পট ইমরান আনজিরার পিছু ছাড়েনি। অবশেষে গত ২৮জানুয়ারী ইমরান আনজিরার কাছে এলে এলাকার লোকজন টের পেয়ে দুজনকে ধরে মারধর করে স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়িতে খবর দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। পরে স্থানীয় মাতবরদের সহায়তায় তাদের কে ছেড়ে দেওয়া হয়। এব্যাপারে ভুক্তভোগি আনজিরা বলেন আমাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দীর্ঘদিন শারীরিক সম্পর্ক করেছে। আমার স্বামীকে তালাক দেওয়ার জন্য চাপ দিয়ে আসছে কিন্তু এখন বিয়ে করতে বললে ইমরান আর আমাকে বিয়ে করতে চাইনা এবং আমার স্বামীও সন্তানের পিতৃত্ব পরিচয় দিয়ে মেনে নিতে চাচ্ছে না। আমি ইমরানের প্রতারনার শিকার, একজন অসহায় নারী হিসেবে আমি এই প্রতারক ইমরানের সঠিক বিচার চাই। ডাকবাংলা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্য বিল্লাল হোসেন বলেন আমরা তাদের চালান দিয়ে দিয়ে ছিলাম পরে কিভাবে জামিন নিয়েছে তা আমার জানা নাই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
ছবি ও নিউজ কপি করা নাজমুলের নিসেদ