• সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৩৮ পূর্বাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনাম
মেরিন ড্রাইভে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ গেলো স্কুল ছাত্রের, আহত ২ রাজশাহীতে উচ্ছেদে দিশেহারা প্রতিবন্ধী পরিবার বাগমারায় মরহুম মকলেছুর রহমানের কুলখানি উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হোমনায় বিয়ে বাড়িতে ছবি তোলাকে কেন্দ্র করে গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষ ;  আহত -২০ রাজশাহী মহানগরীতে ৭০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট ও ২০ গ্রাম হেরোইনসহ আটক ১ রাজশাহী মহানগরী ডিবির অভিযানে ৫০ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার পদকজয়ী মোশাররফের চিকিৎসার দাবিতে রাজশাহীতে মানববন্ধন রাজশাহীতে দাঁতের চিকিৎসায় খিচুনির ওষুধ দেওয়ায় মামলা ৩নং ইটালি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের ত্রীবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত গড়াই নদীতে পাওয়া গেলবিষাক্ত ‘চন্দ্রবোড়া’

বিচারাধীন পাঁচ পাঁচটি মাদক মামলার আসামী কালীগঞ্জে পৌরসভার নির্বাচিত কাউন্সিলর

Reporter Name / ১৭ Time View
Update : মঙ্গলবার, ২ মার্চ, ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহ-

একটি নয়, দুটি নয় আদালতে বিচারাধীন পাঁচ পাঁচটি মাদক মামলার আসামী রুবেল হোসেন কাউন্সির নির্বাচিত হয়ে সবাইকে চমকে দিয়েছেন। রোববার (২৮ ফেব্রয়ারি) অনুষ্ঠিত কালীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে রুবেল ২নং সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। তিনি ১০৪৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি দিনবন্ধু পেয়েছেন ৬৪০ ভোট। কালীগঞ্জ পৌর এলাকার খয়েরতলা গ্রামের মন্টু বিশ্বাসের ছেলে রুবেল জনপ্রতিনিধি নির্বাচতি হওয়ার খবরে চক্ষু চড়ক গাছে উঠেছে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্মকর্তাদের। এটি খারাপ নজীর হয়ে থাকবে বলে পুলিশের কয়েকজন কর্মকর্তা মন্তব্য করেন। তথ্য নিয়ে জানা গেছে, দেশব্যাপী মাদক বিরোধী অভিযান শুরু হলে ক্রসফায়ারের ভয়ে দুই বছর ভারতে পালিয়ে ছিলেন রুবেল। সেখানে তিনি বনগায়ে বসবাস করতেন। ২০১৯ সালের ৫ মে তারিখে শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে রুবেল (৩১) ও তার চাচাতো ভাই সজল (২৩) কালীগঞ্জ থানা পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেন। কালীগঞ্জ থানার তৎকালীন ওসি ইউনুচ আলী জানিয়েছিলেন, রুবেল শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী। সে দীর্ঘদিন ধরে ফেন্সিডিল, ইয়াবাসহ বিভিন্ন ধরনের মাদক বিক্রির সাথে জড়িত ছিল। তিনি তার চাচাতো ভাই সজলকে সাথে নিয়ে মাদকের বিরাট সিন্ডিকেট গড়ে তোলেন। র্যাব ও পুলিশের ভাষ্যমতে বিভিন্ন সময়ে তার বাড়িতে পুলিশ, র্যাব ও মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর একাধিকবার অভিযান চালিয়ে অনেক মাদকদ্রব্য উদ্ধারও করে। মাদক দ্রব্য উদ্ধারের পর তার বিরুদ্ধে একে একে ৫টি মামলা দায়ের করা হয়। এখন বিচারাধীন আছে ৫টি মাদক মামলা। রুবেল হোসেন তার হলফনামায়ও ৫টি মাদক মামলা থাকার কথা স্বীকার করেছেন। ঝিনাইদহ র্যাবের তৎকালীন মেজর মনির আটক করার পর তিনি পালিয়ে যান বলেও কথিত আছে। রুবেল হোসেনের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত উল্লেখযোগ্য মামলার মধ্যে রয়েছে, ২০১৭ সালের ৫ জুন কালীগঞ্জ থানায় দায়েরকৃত মামলা নং ০৬, একই থানায় ২০১৪ সালের ২৮ সেপ্টম্বর দায়েরকৃত মামলা নং ২২, ২০০৯ সালের ২৭ এপ্রিল কালীগঞ্জ থানায় দায়েরকৃত মামলা নং ১৯, ২০১২ সালের ১৩ নভেম্বর কালীগঞ্জ থানায় দায়েরকৃত মামলা নং ১৪ ও ২০১০ সালের ২৩ জানুয়ারী কালীগঞ্জ থানায় দায়েরকৃত মামলা নং ২০। এ বিষয়ে কথা হলে নবনির্বাচিত কাউন্সিলর রুবেল হোসেন প্রথমে মামলাগুলো ষড়যন্ত্র হিসেবে উল্লেখ করলেও পরে জানান, ২০১৯ সালের ৫ মে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পন করার পর সব কিছু ছেড়ে দিয়ে তাবলীগ করেন। দ্বিনের দাওয়াত দেওয়ার কারণে মানুষ তাকে পচ্ছন্দ করে ভোট দিয়েছেন। তিনি এখন ভালো ও স্বাভাবিক জীবন যাপন করছেন বলেও দাবী করেন। এলাকায় মসজিদও করে দিয়েছেন রুবেল হোসেন। এদিকে একাধিক মাদক মামলার আসামী কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার বিষয়ে কালীগঞ্জ উপজেলার নির্বাচন অফিসার আলমগীর হোসেন জানান, আদালত থেকে সাজাপ্রাপ্ত হলে তার মনোনয়ন বাতিল হতো। যেহেতু তার মামলাগুলো বিচারাধীর রয়েছে, সেহেতু তার কাউন্সিলর হতে বাধা ছিল না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
ছবি ও নিউজ কপি করা নাজমুলের নিসেদ