• সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৫:৩৫ অপরাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনাম
নান্দাইল প্রেসক্লাব পদক ২০২২ পেলেন আজকের পত্রিকার সাংবাদিক মিন্টু মিয়া ডিমলা বাসীকে ”ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা” জানিয়েছেন ওসি লাইছুর রহমান তিতাসে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী জেলে সমিতির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল কুমিল্লা কলেজ থিয়েটারের একযুগ পূর্তিতে চাঁদ পালঙ্কের পালা মঞ্চায়ন বর্ণাঢ্য আয়োজনে পালিত হচ্ছে আরএমপি’র ৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পুলিশ আপনার সেবায় সদা প্রস্তুত- করিমগঞ্জ থানার তদন্ত ওসি জয়নাল আবেদীন। রাজশাহী মেডিকেল কলেজের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত বাগমারার ঝিকরা ইউপি’তে চক্ষু শিবির অনুষ্ঠিত আর্তমানবতার সেবায় কাজ করে যাচ্ছেন বড়চর সমাজ কল্যাণ সংগঠনের তরুনরা। নওগাঁর মান্দায় লটারীর মাধ্যমে মহিলাদের জন্য আয়বর্ধক প্রশিক্ষণ প্রকল্পের প্রশিক্ষণার্থী নির্বাচিত

কাঠালিয়ায় জরায়ু কেটে ফেলা প্রসূতীকে ছাড়পত্র না দিয়ে তাড়িয়ে দেন ডাঃ তাপশ ;রোগী এখন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে!

ঝালকাঠি প্রতিনিধি / ২৬ Time View
Update : বুধবার, ৫ জানুয়ারী, ২০২২

ঝালকাঠির কাঠালিয়ায় ডাক্তার তাপশ কুমার তালুকদারের অপচিকিৎসার শিকার প্রসূতী মাহিনুর বেগম এখন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে। সম্প্রতি একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে সিজার কালে প্রসূতী মাহিনুর বেগমের জরায়ু কেটে ফেলেন ডাক্তার তাপশ কুমার তালুকদার। মাহিনুর বর্তমানে ঢাকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। কাঠালিয়া গ্রামের মৃত শাহজাহানের মেয়ে মাহিনুরের মা রুনু বেগম ও স্বামী নিজাম উদ্দিন খান সাংবাদিকদের কাছে ভুল চিকিৎসার ঘটনা তুলে ধরে ডাঃ তাপশের বিচার দাবি করেন।

নিজাম উদ্দিন জানান, “আমার প্রসূতী স্ত্রী মাহিনুরকে গত ০৯ ডিসেম্বর ২০২১ তারিখ কাঠালিয়া উপজেলা হাসপাতালে (আমুয়া) নেয়া হলে সেখানে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ তাপশ কুমার তালুকদার তাকে হাসপাতাল সংলগ্ন আমুয়া অ্যাপোলো ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকে পাঠান। সেখানে ডাঃ তাপশ নিজেই রোগীর পরিক্ষা-নিরীক্ষার পর সিজার করতে গিয়ে মাহিনুরের জরায়ু কেটে ফেলেন।

রোগী অতিরিক্ত রক্তক্ষরন থামাতে না পেরে ১৫ ডিসেম্বর ডা. তাপশ ক্লিনিক থেকে মাহিনুরের নাম কেটে দিয়ে অন্যত্র চিকিৎসা নেওয়ার পরামার্শ দেন। তখন তারা ক্লিনিকের ছাড়পত্র চাইলে তা না দিয়ে উল্টো ডাক্তার তাপশ ও ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ বিষয়টি সাংবাদিক কিংবা প্রশাসনকে জানালে তাদের ক্ষতি হবে বলে শাসিয়ে দেন”। তবে ডাক্তার তাপশ মৌখিক ভাবে তাদের কাছে ভুল চিকিৎসার কথা স্বীকার করে ছিলেন।

তবে রোগীর অবস্থা ক্রমাবনতি হতে থাকলে ডাঃ তাপশ চিকিৎসার কাগজপত্র আটকে দিয়ে জরায়ু কেটে ফেলার কথা অস্বীকার করেন। নিরুপায় হয়ে স্বামী নিজাম উদ্দিন বেতাগী উপজেলা হাসপাতলে নিলে চিকিৎসকরা রোগীর অবস্থা আশাঙ্কাজনক দেখে ঢাকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে প্রেরণ করলে গত ০২ জানুয়ারী সেখানে ভর্তি করা হয়।

সেখানে ডাক্তারা জানায়, রোগী মাহিনুরের অবস্থা সংকটাপন্ন, সিজার ও কেটে ফেলা জরায়ুর স্থানে পঁচন ধরেছে। আগামীকাল ৫ জানুয়ারী ২০২১ পরীক্ষা-নিরীক্ষার রিপোর্ট পেলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পূনরায় অপারেশন প্রয়োজন কিনা বা এ মুহুর্তে অপারেশন করা যাবে কিনা সিন্ধান্ত নিবেন।

মাহিনুরের মা রুনু বেগম জানান, “ সিজারের পূর্বে ডা. তাপশ ১৬ হাজার টাকা লাগবে জানালেও সিজারে ভুল চিকিৎসা পরেও তাদের ৩৬ হাজার টাকা নিয়েছে। অপশারনের পর ১১ ব্যাগ রক্তসহ এখোন পর্যন্ত মেয়েকে ১৬ ব্যাগ রক্ত দেয়া হয়েছে। আমার মেয়ে এখন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে রয়েছেন। আমরা ভয়ে ও গরীব বলে মামলা করতে সাহস পাইনি। আমি ডাক্তার তাপশের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি চাই।

অভিযোগ রয়েছে, নিজ উপজেলায় কর্মস্থল হওয়ায় ডাক্তার তাপশ কাউকে তোয়াক্কা করছেন না। সরকারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগীদের সেবা ফাঁকি দিয়ে সরকারের দেওয়া গাড়ি হাকিয়ে প্রাইভেটঁ ক্লিনিকে রোগী দেখা এবং ব্যক্তিগত কাজে গাড়ী ব্যবহার করা, রোগীদের সাথে দুর্ব্যবহার করা, হাসপাতালে বসে রোগী দেখে ভিজিট নেয়ে আসছে। ই সার্টিফিকেট বানিজ্যসহ পাহাড় সমান অভিযোগ রয়েছে ডা. তাপস কুমার তালুকদারের বিরুদ্ধে।

এ বিষয়ে ডা. তাপস কুমারের সাথে একাধিকবার ফোন যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোনটি রিসিভ করেননি। মতামত নেয়ার জন্য হাসপাতালে গিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি।

Print Friendly, PDF & Email


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category