• বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৬:১৬ পূর্বাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনাম
সিলেটে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ মাদ্রাসায় তাকওয়া ফাউন্ডেশনের ১ হাজার কোরআন বিতরণ ময়মনসিংহের নান্দাইলে ফাঁসিতে ঝুলন্ত অবস্থায় নিখোঁজ এক বৃদ্ধ ভিক্ষুকের লাশ উদ্ধার প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন বাস্তায়ন করা হয়েছে জেলা প্রশাসক এনামুল হক। নান্দাইল প্রেসক্লাব পদক ২০২২ পেলেন আজকের পত্রিকার সাংবাদিক মিন্টু মিয়া ডিমলা বাসীকে ”ঈদুল আজহার শুভেচ্ছা” জানিয়েছেন ওসি লাইছুর রহমান তিতাসে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র মৎস্যজীবী জেলে সমিতির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল কুমিল্লা কলেজ থিয়েটারের একযুগ পূর্তিতে চাঁদ পালঙ্কের পালা মঞ্চায়ন বর্ণাঢ্য আয়োজনে পালিত হচ্ছে আরএমপি’র ৩০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পুলিশ আপনার সেবায় সদা প্রস্তুত- করিমগঞ্জ থানার তদন্ত ওসি জয়নাল আবেদীন। রাজশাহী মেডিকেল কলেজের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত

রাবিতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে ছাত্র-শিক্ষক-অভিভাবক ঐক্য

Reporter Name / ৪০ Time View
Update : সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১

মোঃ পাভেল ইসলাম প্রধান প্রতিবেদক

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ছাত্র-শিক্ষক-অভিভাবক ঐক্য। সোমবার (০৮ মার্চ) বেলা ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিফলক চত্বরে আয়োজিত এক কর্মসূচি থেকে এ দাবি জানান তারা।

মানববন্ধনে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতারকৃতদের নিঃশর্ত মুক্তি এবং লেখক মুশতাক হত্যাকাণ্ড ও কার্টুনিস্ট কিশোরকে অমানবিক নির্যাতনের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।

মানববন্ধনে নৃবিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক বখতিয়ার আহমেদ বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন যারা তৈরি করেছে তারা দেশের মানুষকে বুদ্ধিহীন প্রাণি মনে করেন। আইন করে যদি কোন সম্মানিত ব্যক্তির সম্মান রক্ষা করতে হয়, তাহলে তার সম্মান থাকার কথা নয়। ডিজিটাল নিরাপত্তা একটি আইন যার লক্ষ্য রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসকে ব্যক্তিক্ষেত্রে ব্যবহার করা। মুশতাক, কিশোরসহ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতারকৃত সকলের জন্য আমরা আগেও আন্দোলন করেছিলাম। এই আইনের ফলাফল আমরা যা আশঙ্কা করেছিলাম তাই হচ্ছে। এটাকে এখন আর আইন বলার উপায় নেই।’

অর্থনীতি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন খান বলেন, ‘একটি সুরক্ষার মধ্য থেকে মুশতাক আহমেদ নিহত হওয়া জাতির কাছে একটি বড় প্রশ্ন। আমরা কিশোরের থেকে শুনেছি তার ওপর অমানবিক অত্যাচার চালানো হয়েছে। এটি সংবিধান পরিপনি। কারণ সংবিধানে কথা বলার, মত প্রকাশের মৌলিক অধিকার দেওয়া হয়েছে। কিন্তু কেউ অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বললে এই আইনে গ্রেপ্তার, হয়রানি, নির্যাতন করা হচ্ছে। সরকারের কাছে অবিলম্বে অনুরোধ, এই ধরনের কালো আইন বাংলাদেশের মাটি থেকে চিরতরে কবরস্থ’ করতে হবে।’

বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম আহ্বায়ক ইমরান ইমন বলেন, ‘ডিজিটাল আইনের মধ্যে ভাবমূর্তি যুক্ত করা হয়েছে; রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি, সরকারের ভাবমূর্তি, প্রধানমন্ত্রীর ভাবমূর্তি। রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি তখন কোথায় যায় যখন ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে ভোট ডাকাতি করে এই অবৈধ সরকার ক্ষমতায় আসে? তখন রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি নষ্ট হয় না। রাষ্ট্রের ভাবমূতি বলতে কী বোঝায়? এখনও মানুষ অনাহারে রাস্তায় ঘুমায়, তখন রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি নষ্ট হয় না।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আব্দুল মজিদ অন্তরের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন, আরবী বিভাগের অধ্যাপক ইফতিখারুল আলম মাসউদ, ফোকলোর বিভাগের অধ্যাপক আমিরুল ইসলাম কনক, রাজশাহী প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আসলাম-উদ-দৌলা, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক রিদম শাহরিয়ার, গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক এ্যডভোকেট মুরাদ মোর্শেদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর হোসেন প্রমুখ।

Print Friendly, PDF & Email


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category